হাসপাতালের লাইনে দাঁড়িয়েই মৃত্যু শিশুর

ভারতের পাটনায় হাসপাতালে নাম নথিভুক্ত করানোর লাইনে দাঁড়িয়েই মৃত্যু হলো এক শিশুর। শুধু তাই নয় অর্থ উপার্জন না করতে পারায় সন্তানের লাশ নিজের কাঁধেই বহন করে নিয়ে যেতে হয়েছে বাবাকে।

পাটনার কাজরা গ্রামের দিনমজুর রামবালকের শিশুকন্যা গত ছয়দিন ধরেই প্রবল দ্বরে ভুগছিল। চিকিৎসার জন্য ১৪০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে অল ইন্ডিয়া ইন্সটিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্সে (এইমস) মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে পৌছান তিনি। কিন্তু হাসপাতালে ঢুকে শোনেন রোগী ভর্তির জন্য আগে নাম বহির্বিভাগে নথিভুক্ত করতে হবে।

নাম নথিভুক্ত করার দীর্ঘ লাইনে মেয়েকে নিয়ে দাঁড়ান রামবালক। সবাইকে অনুনয় করেন মুমূর্ষু মেয়ের জন্য জায়গা ছেড়ে দিতে। কিন্তু তার আবেদনে সাড়া দেয়নি কেউই। ফলে লাইন শেষ হওয়ার আগেই মৃত্যু ঘটে মেয়ের।

এরপরও বিপত্তি পিছু ছাড়েনি ওই দরিদ্র ওই পরিবারের। অর্থ জোগাড় না করতে পারায় সন্তানের লাশ নিজের কাঁধেই বয়ে নিয়ে যেতে হয়েছে রামবালককে। কারণ ফি জমা দিতে না পারায় তাদেরকে অ্যাম্বুলেন্সও সরবরাহ করেনি কর্তৃপক্ষ।

এই ঘটনায় সমালোচনার মুখে পড়েছেন এইমস কর্তৃপক্ষ। তবে বিনা চিকিৎসায় শিশুমৃত্যুর ঘটনার কথা জানেন না বলে জানিয়েছেন এইমস ডিরেক্টর প্রভাতকুমার সিংহ।

তার দাবি, ‘গুরুতর অসুস্থদের জন্য আগে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। তার পরে রেজিস্ট্রেশন কার্ড তৈরি করা হয়। তবে এ রকম যদি সত্যিই ঘটে তা আমি খতিয়ে দেখব।’

সূত্র : আনন্দবাজার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*