টেকনাফে সুধীসমাবেশ অনুষ্ঠানে নবনিযুক্ত জেলা প্রশাসক মো: কামাল হোসেন

নিজস্ব প্রতিনিধি :

টেকনাফকে মাদক ইয়াবামুক্ত করতে প্রশাসনকে বস্তুনিষ্ট তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করে মাদকমুক্ত সমাজ গড়ে তুলুন। এজন্য শিক্ষাকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। যেসব স্কুলে শিক্ষক সংকট ও পদ শূণ্য রয়েছে তা শিগগিরই পুরণ করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে। রোহিঙ্গা একটি আন্তর্জাতিক সমস্যা। তবে রোহিঙ্গাদের দ্বারা ক্ষতিগ্রস্থ উখিয়া টেকনাফের মানুষের জন্য সরকারের চিন্তাধারা রয়েছে।
ইয়াবা পাচার ও রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে নাফ নদে ৬-৭ মাস ধরে জেলেদের মাছ শিকার বন্ধ রাখা একটি অমানবিক সিদ্ধান্ত। কেউ দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়লে তাকে দুদকের হাতে তুলে দেওয়া হবে। কক্সবাজারের সরকারের মেগা প্রকল্প গুলোবাস্তবায়নে কাউকে যাতে ভোগান্তিতে পড়তে না হয় সে বিষয়ে সকলকে সর্তক থাকতে হবে। এ ক্ষেত্রে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি,রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ ও সংশ্লিষ্ট ঐক্যবদ্ধভাবে সচেতনতার সাথে কাজ করতে আহবান জানান কক্সবাজারের নবনিযুক্ত জেলা প্রশাসক মো: কামাল হোসেন ।টেকনাফ উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত সুধীসমাবেশ ও আলোচনা সভায় ১৫ মার্চ বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
উপজেলা মিলনায়তন কক্ষে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো রবিউল হাসানের সভাপতিত্বে ও একাডেমিক সুপারভাইজার নুরুল আবছারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি বক্তব্য ২ বিজিবির অধিনায়ক আসদুদ জামান চৌধূরী, সাবেক সাংসদ অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী,উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আহমেদ, জেলা পরিষদ সদস্য শফিক মিয়া, থানার ওসি রনজিত কুমার বড়ুয়া, উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশর, প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি জাবেদ ইকবাল চৌধূরী, উপজেলা বিভিন্ন সমাজিক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ,প্রশাসনের কর্মকর্তা বক্তব্য রাখেন। এ সময় বিভিন্ন পেশাজীবী উপস্থিত ছিলেন। বক্তরা রোহিঙ্গা ও ইয়াবা বিষয় নিয়ে বিশদ আলোচনা করেন।
প্রসংগত জেলাপ্রশাসক মো: কামাল হোসেন গত ৪ মার্চ কক্সবাজার জেলার দায়িত্বভারগ্রহনের পর প্রথম টেকনাফ সফর করেসুধীসমাবেশে অংশ নেন। এ সময়নবাগত জেলাপ্রশাসককেবিভিন্নসংগঠনেরপক্ষ থেকে ফুলেলশুভেচ্ছাপ্রদানকরাহয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*