রাজধানীতে কমছে না নিত্যপণ্যের দাম

মাটিন নিউজ ডেক্স:

রাজধানীতে দাম কমছে না নিত্যপণ্যের। বরং দিনের পর দিন লাগামহীনভাবে বেড়েই চলেছে এসব পণ্যের দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে আবারও বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে মাছ, মাংস, ডিম ও সবজি। এসব পণ্যে কেজিপ্রতি ১০ থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত বেশি দাম দিয়েই কিনতে হচ্ছে ক্রেতাদের।রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, রাজধানীর হাতিরপুল কাঁচাবাজারে ২০ টাকা বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে কাঁচা মরিচ। গত সপ্তাহে ১৪০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেলেও শুক্রবার (২০ জুলাই) নেওয়া হচ্ছে ১৬০ টাকা। একইভাবে বেড়েছে অন্যান্য সবজির দাম। এ বাজারে প্রতিকেজি শিম ২৬০ টাকা, শসা ৬০ টাকা, পটল ৫০ টাকা, কাকরোল ৬০ টাকা, বেগুন ৭০ থেকে ৮০ টাকা, ঝিঙা ৫০ টাকা, ধুন্দুল ৫০ টাকা, কচুর ছড়া ৬০ টাকা, পেঁপে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা, বাঁধাকপি ও ফুলকপি প্রতিপিস ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।ইয়াছিন অলী নামের এক ক্রেতা বলেন, প্রতিনিয়ত বিভিন্ন সবজির দাম বেশি নেওয়া হচ্ছে। আজ কোনো কোনো সবজিতে ১০ টাকা পর্যন্ত বাড়তি দামে বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা।এ বাজারের সবজি বিক্রেতা মো. আলম বলেন, এখন সবজির ভরা মৌসুম না হওয়ায় পাইকারি বাজারে দাম বেশি। পাইকারি বাজারে দাম বেশি হওয়ায় খুচরা বাজারেও বেশি দামে সবজি বিক্রি করা হচ্ছে।

শান্তিনগর কাঁচাবাজারে মাছ ও মাংসের বাজার বেশ চড়া। এ বাজারে প্রতিকেজি চিংড়ি বিক্রি হচ্ছে ৭০০ থেকে ১৪০০ টাকায় (আকারভেদে), রুই ২৫০ টাকা থেকে ৪৫০ টাকা, কাতল মাছ ৩০০ টাকা, তেলাপিয়া ১৬০ টাকা, পাঙাস ১৬০ টাকা, শিং ৬০০ থেকে ১০০০ টাকা, কৈ ২২০ টাকা, কৈ (দেশি) ৮০০ টাকা, টেংরা ৮০০ টাকা, পাবদা ৭০০ টাকা, মলা ৪৫০ টাকা, ইলিশ (৯০০ গ্রাম) জোড়া ৩০০০ টাকা, ইলিশ (সোয়া কেজি) প্রতিপিস ২৫০০ টাকায়।

এছাড়া প্রতিকেজি মুরগি (বয়লার) ১৮০ টাকা, লেয়ার ২৪০ টাকা, গরুর মাংস ৫২০ টাকা, খাসি ৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে ডিমের দামও বেশ চড়া। সপ্তাহ ব্যবধানে ডিমের ডজন প্রতি বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত। ডিম (লাল) ডজন ১০৫ টাকা, হাঁসের ডিম ডজন ১৩০ টাকা, দেশি মুরগির ডিম ১৮০ টাকা ডজনে বিক্রি করতে দেখা গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*